আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২:১৭, ২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং, ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৩ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিয়ের বয়স নিয়ে ইসলামী শরিয়ত কী বলে?

নিউজ ডেস্ক | জাগো বার্তা .কম
আপডেট : নভেম্বর ৯, ২০১৮ , ১২:৪৯ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : লাইফস্টাইল
পোস্টটি শেয়ার করুন

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় দেশের বেসরকারি একটি টেলিভিশনের জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

প্রশ্ন : শরিয়তে ছেলেমেয়েদের বিয়ের বয়স কত?

উত্তর : বিয়ের জন্য ছেলে বা মেয়েদের বয়স নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি। ইসলামী শরিয়ত যে বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছে, সেটি হলো, বিয়ের জন্য বেশি দেরি না করা। কারণ বিয়ে করতে যত দেরি করবেন, ততই অনৈতিক অথবা অশালীন কোনো কাজে সম্পৃক্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকবে।

এই জন্য শরিয়তের বিধান হচ্ছে, বিয়ের ক্ষেত্রে দেরি না করা যথাসম্ভব দ্রুত বিয়ের কাজটি সম্পন্ন করা। ছেলে বা মেয়ে উপযুক্ত হলেই বিয়ে দিয়ে দিতে হবে। বিয়ের জন্য নির্দিষ্ট কোনো সময় বেঁধে দেওয়া হয়নি যে এ সময়ের মধ্যে বিয়ে করতে হবে।

তবে সামাজিক যেই নিয়ম-কানুন আছে, সেগুলোও অনুসরণ করা যেতে পারে। যদি অষ্টম শ্রেণিতে পড়া একটি ছেলেকে আপনি বিয়ের জন্য বলেন, সে তো নিজের জীবনের ব্যাপারেই এখনো সচেতন হয়নি, বিয়ের দায়-দায়িত্ব সে কীভাবে বহন করবে। সংসার, দাম্পত্য জীবন সম্পর্কে বোঝাটাই তার জন্য কষ্টকর হয়ে যাবে। ছেলে বা মেয়ের যাতে পরিপক্বতা আসে, কিছুটা শিক্ষা-দীক্ষা হয়, সেগুলোও সামাজিকভাবে বিবেচনার বিষয় রয়েছে।

যদিও ইসলামে বয়স নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি, কিন্তু প্রাপ্তবয়স্ক না হয়ে সে বিয়ে করতে পারবে না। প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া বিয়ের প্রয়োজনীয়তার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।